হস্তমৈথুন এর ক্ষতিকর দিক সমূহ এবং এর থেকে বাঁচার সহজ উপায়। Masturbation

হস্তমৈথুন এর ক্ষতিকর দিক অনেক। বর্তমান সমাজে মারাত্মক ব্যাধি হয়ে দাড়িয়েছে।হস্তমৈথুন ইংরেজিতে যাকে Masturbation (মাস্টারবেশন) বলা হয়।যখন কোন ছেলে মেয়ে প্রাপ্ত বয়সে উপনিত হয় তখন তারা নিজেদের অজান্তেই এই ভয়ংকর কাজে জড়িয়ে পরে।

হস্তমৈথুন এর ক্ষতিকর দিক সমূহ এবং এর থেকে বাঁচার সহজ উপায়। Masturbation

হস্তমৈথুন এর ক্ষতিকর দিক ও হস্তমৈথুন থেকে বাঁচার উপায় 

বর্তমান সময়ে ইন্টারনেট সহজতর হওয়ায় অনলাইনে নানা অনৈতিকমূলক বিভিন্ন ভিডিও ক্লিপ, ছবি ইত্যাদি এর মাধ্যমে অনেকেই এই কাজে উদ্ভুদ্ধ হয়।কেউ বা তার বন্ধু বান্ধব এর মাধ্যমে কেউ বা নিজের অজান্তেই এই কাজে জড়িয়ে নিজের জীবনকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে। 

বর্তমান সময়ে শুধু ছেলে নয় মেয়েরা ও এইরকম ভয়াবহ কাজে জরিত। প্রাপ্ত বয়সে উপনিত হওয়ার পর প্রায় ৬০% ছেলে ও ৪০% মেয়ে নিজের অজান্তেই এই কাজে জড়িয়ে পরে। 

তাই আজকের আর্টিক্যালে হস্তমৈথুন সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো।হস্তমৈথুন সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে সম্পূর্ণ আর্টিক্যালটি মনযোগ সহকারে পড়ার অনুরোধ রইলো। 

আজকের আর্টিক্যালের মাধ্যমে  যা যা জানতে পারবো তা হলঃ

  • হস্তমৈথুন কি? 
  • হস্তমৈথুন কেন করে? 
  • হস্তমৈথুনের ক্ষতিকর প্রভাবর।
  • হস্তমৈথুন ছাড়ার সহজ ও কার্যকরী উপায়। 
  • হস্তমৈথুন থেকে বাঁচতে যে বই পড়তে পারেন।
  • মেয়েদের হস্তমৈথুন। 
  • হস্তমৈথুনের কারণে মেয়েদের যেসব ক্ষতি হয়। 
  • হস্তমৈথুনের ঘরোয়া চিকিৎসা।
  • হস্তমৈথুনের হোমিও চিকিৎসা ।
  • হস্তমৈথুন এর ক্ষতি পূরণে যেসব খাবার খাবেন ।
  • হস্তমৈথুন সম্পর্কে ইসলাম কি বলে? 

হস্তমৈথুন কি? 

হস্তমৈথুন বলতে এক কথায় যেটা বলা যায় তা হল, হাতের মাধ্যমে বিভিন্ন উপায়ে বির্যপাত করা। কখনো বা হাত ছাড়া ও  বিভিন্ন জিনিসের মাধ্যমে বির্যপাত করে থাকে। 

আরো পড়ুনঃ শীতে ত্বকের যত্ন কিভাবে নিবেন? শুস্ক ত্বকের যত্ন নেওয়ার উপায়।

হস্তমৈথুন কেন করে? 

ছেলে মেয়ে প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার পরে তাদের শরীরে যৌনচেতনা বা চাহিদা বেড়ে যায় ফলে নিজেদের কে নিয়ন্ত্রণে রাখতে না পেরে তারা এই জঘন্যতম কাজে জড়িয়ে পরে।

 হস্তমৈথুনের ক্ষতিকর প্রভাব:

হস্তমৈথুনের ক্ষতিকর দিক অনেক। প্রত্যেক পুরুষ এবং মহিলাদের বয়স বাড়ার সাথে সাথে যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধি পেতে থাকে ড় তখনি নানান ভাবে এই হস্তমৈথুন নামক ভয়ংকর ব্যাধিতে জড়িয়ে পরে। যাদের একবার এটা  অভ্যাসে পরিণত হয়ে যায় বলা যায় তার জীবন যৌবন সব ধ্বংস করে দেয়। কেননা এটা ত্যাগ করা খুবই কষ্ট সাধ্য ব্যাপার। 

হস্তমৈথুনের কারণে নানান ধরনের সমস্যা দেখা দেয়।এমনকি  অকাল বির্যপাত হওয়ার কারণে ছেলেরা বিয়ে করতে ভয় পায়। তাদের যৌন জীবন কে বিপর্যস্ত করে তুলে। 

হস্তমৈথুনের কারণে ২ ধরনের সমস্যা দেখা দেয় তা হলঃ

১. মানসিক সমস্যা

২. শারীরিক সমস্যা

মানসিক সমস্যাঃ

হস্তমৈথুনের কারণে ছেলেরা মানসিকভাবে ভেঙে পরে। অকাল বির্যপাত হওয়ার কারণে বিয়ে করতে ভয় পায়। সবসময় দুশ্চিন্তা তাদের কে গ্রাস করতে থাকে।অতিরিক্ত হস্তমৈথুনের ফলে ব্রেইনে এতটাই চাপ পরে যে তাদের আচরণে অশৃঙ্খল দেখা যায়। ফলে তাদের জীবন হয়ে উঠে দূর্বিসহ ও ভয়াবহ। 

আরো পড়ুনঃ পাইলস কি? পাইলস এর লক্ষণ ও ঘরোয়া চিকিৎসা 

শারীরিক সমস্যাঃ

হস্তমৈথুনের ফলে সবথেকে বেশি ক্ষতি হয় শারীরিক ভাবে।হস্তমৈথুনের ক্ষতিকর প্রভাবগুলো আমাদের বাস্তব জীবনে সব থেকে বেশি প্রতিফলন হয়।অতিরিক্ত মাত্রায় হস্তমৈথুন করার ফলে শরীর অল্প দিনের মধ্যে খারাপ বা অসুস্থ হয়।স্বাস্থ্য চেহারা সব কিছুই নষ্ট হয়ে যায়।  তাই হস্তমৈথুনের ক্ষতিকর দিক গুলো জানা খুবই প্রয়োজন। 

নিচে হস্তমৈথুনের ফলে শারিরীক যে সমস্যা দেখা দেয় তা  দেওয়া হলঃ

১. অতিরিক্ত হস্তমৈথুনের ফলে সব থেকে বড় যে সমস্যা হয় তা হল  অকাল বীর্যপাত। অকাল বির্যপাত এর ফলে স্বামী তার স্ত্রীকে পুরোপুরি  সন্তুষ্ট করতে অক্ষম হয়ে পরে। ফলে বিবাহিত জীবনে নেমে আসে অশান্তি। 

২. অতিরিক্ত হস্তমৈথুনের ফলে বির্যের শুক্রানু কমে যায় এবং বির্য পাতলা হয়ে যায়।  বিজ্ঞানের ভাষায়, কোনো পুরুষের বির্যে যদি ২০ কোটির কম শুক্রাণু থাকে তাহলে সেই পুরুষ সন্তান জন্ম দিতে অক্ষম হয়ে পরে। 

৩. শরীরের বিভিন্ন সিস্টেম যেমন, Nervous system, heart, digestive system, urinary system এবং আরো বিভিন্ন রকম system অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয় । পুরুষের যৌনাঙ্গ একেবারেই দূর্বল হয়ে পরে এবং সমস্ত শরীর একেবারেই দুর্বল হয়ে যায়  শরীরে বিভিন্ন রোগ দেখা দেয়।

৪. চোখের সমস্যা দেখা দেয়।দূরের জিনিস ঝাপসা দেখে।

৫. অতিরিক্ত হস্তমৈথুনের ফলে কানে ও সমস্যা হয়। কানে কম শুনতে পায়।

৬. অতিরিক্ত হস্তমৈথুনের ফলে নাকের ঘ্রাণ শক্তি হ্রাস পায়। 

৭. হস্তমৈথুন ফলে স্মরণ শক্তি আস্তে আস্তে কমে যায়। কোন কিছুই মনে থাকে না ।

৮. মাথা ব্যথা,  চোখে ব্যাথা আরো বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। 

৯. সামান্য উত্তেজনায় লিঙ্গ থেকে তরল জাতীয় পদার্থ বের হয়। ফলে শরীর দূর্বল হয়ে যায়।

১০. অতিরিক্ত হস্তমৈথুনের ফলে যৌন ক্রিয়ার সাথে জড়িত স্নায়ুতন্ত্রগুলো একেবারেই দুর্বল হয়।

১১. প্রস্রাব এর সমস্যা হয় এবং শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে সমস্যা দেখা দেয়। 

১২. স্বাস্থ্য নষ্ট হয়ে যায় এবং দেখতে অনেক রুগ্ন দেখায়। 

আরো পড়ুনঃ কিটো ডায়েট কি? কিটো ডায়েট কিভাবে করবেন। ডা জাহাঙ্গীর কবির কিটো ডায়েট চার্ট

হস্তমৈথুন ছাড়ার সহজ ও কার্যকরী উপায়:

হস্তমৈথুন ছাড়ার কিছু গুরুত্বপূর্ণ পদ্ধতি রয়েছে এই গুলো মেনে চললে ১০০% হস্তমৈথুন থেকে বেঁচে থাকতে পারবেন। তাই আগে আপনাকে নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস  থাকতে হবে এবং সাহস থাকতে হবে যে আমি পারবো। তো চলুন জেনে নেই হস্তমৈথুন ছাড়ার কার্যকরী কিছু টিপস্। 

১। সবসময় নিজেকে কোনো না কোনো কাজে ব্যস্ত রাখুন। কখনো একা থাকবেন না।

২। নিয়মিত নামাজ পড়ুন এবং কুরআন তেলাওয়াত করুন। 

৩। বাসায় থাকলে পরিবারের সাথে এবং বাহিরে বন্ধুদের সাথে সময় কাটান। 

৪। যতটা সম্ভব মোবাইল থেকে দূরে থাকুন পারলে বাটন ফোন ব্যবহার করুন। 

৫। মোবাইরে কোন আজে বাজে জিনিস রাখবেন না। অশ্লীল কোন কিছু দেখবেন না। 

৬। আপনার যদি মেয়ে বন্ধু বা gf থাকে দয়া করে এইসব রিলেশন থেকে দূরে থাকুন। কেননা বর্তমান সময়ের সম্পর্ক এই গুলো খারাপ এর দিকে ধাবিত করে। 

৭। নিয়মিত শরীর চর্চা করুন। ব্যায়াম করুন। 

৮। বেশি রাত জাগবেন না। রাত জেগে কিছু করবেন না। 

১০। যদি হঠাৎ উত্তেজিত হয়ে যান এবং হস্তমৈথুন করতে ইচ্ছা হয় তাহলে দ্রুত কোন কাজে লেগে যান এবং শারীরিক পরিশ্রম করুন যতক্ষণ পর্যন্ত আপনার শরীর ক্লান্ত না হয়, অর্থাৎ হস্তমৈথুন করার মত শক্তি না থাকে, ততক্ষণ পর্যন্তই কোনো কাজ করুন । 

১১। উলঙ্গ হয়ে কখনো গোসল করবেন না। এবং লজ্জা স্থানে কখনো সাবান ইত্যাদি লাগাবেন না। 

১২। বাতরুমে বেশিক্ষণ থাকবেন না। গোসলের সময় যত দ্রুত সম্ভব বের হয়ে যাবেন। 

১৩। বিকেলে খেলাধুলা করুন। অথবা বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিন।

১৪। সন্ধার দিকে কখনো ঘুমাবেন না। বই পড়ুন না হয় পরিবার কে সময় দিন। 

১৫। যে যে সময় গুলোতে হস্তমৈথুন করতে ইচ্ছা হয় ঐ সময় গুলো মার্ক করুন। এবং ঐ সময়ে কোন কাজ করুন না হয় পরিবার বা বন্ধুদের সাথে সময় কাটান। 

১৬। আপনার যদি হস্তমৈথুন এর মারাত্মক সমস্যা থাকে তাহলে আপনি প্রথম দিকে ছোট ধরণের টার্গেট সেট করতে পারেন । ধরে নিন, প্রথম টার্গেট টানা ৩ দিন কষ্ট হলে হস্তমৈথুন থেকে বেঁচে থাকবেন । ৩ দিন থাকতে পারলে ৭ দিন পরে ১০ দিন তারপর ১ মাস। এভাবে হস্তমৈথুন না করে আস্তে আস্তে সময় বাড়াতে থাকবেন।

এর জন্য আমি আপনাকে একটা অ্যাপ সাজেস্ট করবো।  অ্যাপটির নাম হল  Iron Will  প্লে স্টোরে সার্চ দিলেই পেয়ে যাবেন।alert-success 

হস্তমৈথুন থেকে বাঁচতে যে বই পড়তে পারেন 

অবসর সময় কাটাতে বই পড়তে পারেন। এটা আপনার জন্য খুবই ভাল হবে। হস্তমৈথুন থেকে বাঁচতে "মুক্ত বাতাসের খুঁজে" এবং বেলা ফুরাবার আগে " বই দুটি পড়তে পারেন। 

মেয়েদের হস্তমৈথুন 

আমাদের মধ্যে অনেকেই মনে করেন যে, শুধু ছেলেরাই হস্তমৈথুনে আসক্ত হয়। আসল কথা হল শুধু ছেলেরা নয় মেয়েরা ও আসক্ত হয়। এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, ছেলেরা ৬০-৭০% এবং মেয়েরা ৩০-৪০% হস্তমৈথুনে আসক্ত হয়। 

আরো পড়ুনঃ ছেলেদের মাথার খুশকি দূর করার উপায়। 

হস্তমৈথুনের কারণে মেয়েদের যেসব ক্ষতি হয় 

হস্তমৈথুনের কারণে মেয়েদের ও অনেক ক্ষতি হয়। উপরে যেসব উল্লেখ করা হল তার পাশাপাশি আরো কিছু ক্ষতি হয়। যেমন মেয়েদের সতিত্ব নষ্ট হয়ে যায়। যৌনি পথ ঢিলে হয়ে যায়। বিয়ের পর হাসবেন্ড সন্দেহ করে ইত্যাদি। তাই সবারই উচিৎ হস্তমৈথুন থেকে বেঁচে থাকা। 

হস্তমৈথুনের ঘরোয়া চিকিৎসা

হস্তমৈথুন এর চিকিৎসা বলতে গেলে নেই। আপনি যদি হস্তমৈথুন থেকে বেঁচে থাকতে পারেন তাহলে আপনার কোন চিকিৎসার প্রয়োজন নেই। নিয়মিত খাবার খাবেন  এবং নিয়মিত ব্যায়াম করবেন তাহলেই সব সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে। 

হস্তমৈথুনের হোমিও চিকিৎসা 

হস্তমৈথুন এর দূর্বলতা বা হস্তমৈথুন এর ক্ষতি দূর করতে একমাত্র হোমিও চিকিৎসা কার্যকরি। হস্তমৈথুন করার কারণে যেসব সমস্যা দেখা দিয়েছে তার জন্য হোমিও ওষুধ খেতে পারেন কেননা হোমিও চিকিৎসা ছাড়া কেউ এই সমস্যা থেকে সফল হতে পারেনি। তাই ভাল হোমিওপ্যাথিক ডাক্তার দেখে চিকিৎসা করুন। খুব তাড়াতাড়ি এই সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পেতে পারেন। 

হস্তমৈথুন এর ক্ষতি পূরণে যেসব খাবার খাবেন 

হস্তমৈথুন এর কারণে শারীরিক ভাবে খুবই দূর্বল হয়ে পরে। এবং বির্যের শুক্রাণু সংখ্যা কমে যায়। তাই ক্ষতি পূরণে খেতে হবে ভাল খাবার। হস্তমৈথুন থেকে বেঁচে থাকার পাশাপাশি আপনি এর ক্ষতি পূরণ হিসেবে দুধ ডিম খেতে পারেন এবং তাজা শাক সবজি খাবেন। 

নিয়মিত খাবার খাবেন এবং সকালে খালি পেটে ছোলা বুট, কিসমিস,কাজু বাদাম, কালোজিরা,মধু ইত্যাদি খেতে পারেন। কেননা এই গুলো আপনার শরীরে শক্তি যোগাবে এবং আপনার বির্য ঘন করবে। তাই নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার খান আর হস্তমৈথুন থেকে দূরে থাকুন। 

হস্তমৈথুন সম্পর্কে ইসলাম কি বলে? 

ইসলামের দৃষ্টিকোণ থেকে এই হস্তমৈথুন জঘন্যতম একটি পাপ। এর মাধ্যমে আমরা নিজেদেরকে নিজেরাই শেষ করে দিচ্ছি। নিজের জীবন যৌবন সব ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছি। ইসলাম এইরকম জঘন্যতম কাজকে কখনো সাপোর্ট করেনা। 

হাদিসে বর্ণিত আছে,  রাসুল (সাঃ) বলেন, তোমাদের মধ্যে যাদের সামর্থ্য রয়েছে সে যেন বিয়ে করে নেয় কেননা তা দৃষ্টি এবং লজ্জাস্থান কে হেফাজত করে। আর সামর্থ্য না থাকলে সে যেন রোজা রাখে। কারণ তা যৌন উত্তেজনা প্রশমনকারী।”[সহীহ বুখারী (৫০৬৬)]

রাসূলুল্লাহ্ (সাঃ) আরো বলেছেন: "যে ব্যক্তি আমাকে তার দুই চোয়ালের মধ্যবর্তী জিনিস (জিহ্বার) এবং দুই পায়ের মধ্যবর্তী জিনিস (যৌনাঙ্গ) নিশ্চয়তা দেবে আমি তার বেহেশতের নিশ্চয়তা দিব।" (বুখারী ও মুসলিম)

এই হাদিস গুলো থেকে আমরা বুঝলাম লজ্জাস্থানের হেফাজত কতটা গুরুত্বপূর্ণ। তাই আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে হস্তমৈথুন নামক জঘন্যতম কাজ থেকে বেঁচে থাকার তৌফিক দান করুক। আমিন। 

আমাদের নিত্য নতুন পোস্ট গুলো আপনার টাইমলাইনে পেতে ফলো করুন গুগল নিউজে। লিংকঃ পাঁচমিশালী alert-success

শেষ কথা 

হস্তমৈথুন বা মাস্টারবেশন (Masturbation)  সাময়িক সুখ দিলে ও চিরস্থায়ী সুখকে ধ্বংস করে দেয়। তাই এই মহাপাপ থেকে নিজেকে সর্বদায় বাঁচিয়ে রাখতে হবে। যদি নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারেন তাহলে বিয়ে করুন। আপনার জীবন সুন্দর হবে। অন্যথায় হস্তমৈথুন আপনার জীবন, যৌবন সব ধ্বংস করে দিবে।


Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন